এবারই প্রথম কোরআন তেলাওয়াতে বিশ্বকাপ উদ্বোধন

প্রকাশিত : ২০ নভেম্বর ২০২২

ভোরের দর্পণ ডেস্কঃ

আলোঝলমলে এক মঞ্চ। ওস্তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে একে একে সেই মঞ্চে হাজির জনা বিশেক সদ্যই শৈশব পেরুনো কিশোর। তাদের সকলের পড়নেই আরবী প্রথাগত শুভ্র সাদা পোষাক ‘বেস্ত’। ঠিক মাঝে বসে আছেন ওস্তাদ। শিষ্যদের একজনকে আদূরে ডাকে পাশে বসালেন, বললেন কোরআন থেকে তিলাওয়াত করতে। সুমধুর কণ্ঠে সেই ছোট্ট ছাত্রটি সুর করে তিলাওয়াত করলেন পবিত্র কোরআনুল কারীমের মহিমান্বিত সূরা আর-রহমানের প্রথম ছয় আয়াত-

‘১) আর-রহমান। ২) ‘আল্লামাল কুরআন। ৩) খলাকাল ইনসান। ৪) ‘আল্লামাহুল বায়ান। ৫) আশশামছু ওয়ালকামারু বিহুসবান। ৬) ওয়ান্নাজমু ওয়াশশাজারু ইয়াসজুদান।’

যার বাংলা তরজমা ঠিক এরকম- ‘১) করুণাময় আল্লাহ। ২) শিক্ষা দিয়েছেন কোরআন, ৩) সৃষ্টি করেছেন মানুষ, ৪) তাকে শিখিয়েছেন বর্ণনা। ৫) সূর্য ও চন্দ্র হিসাবমত চলে। ৬) এবং তৃণলতা ও বৃক্ষাদি সেজদারত আছে।’

ব্যাস উদ্বোধন হয়ে গেল ফিফা ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ। গত ক’দিন ধরে এমন একটি ভিডিও ঘুরপাক খাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। পরে আয়োজক কাতার নিশ্চিত করেছে পরিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমেই হবে কাতার ফুটবল বিশ্বকাপের উদ্বোধন। যা শুধু ফুটবল কেন, যে কোনো ক্রীড়া বিশ্বকাপেই অনন্য এক নজির। এই কৃতিত্বের দাবিদার হয়ে এই মহিমান্বিত সূরার আরেকটি আয়াত খুব করে কাতারের জন্য মানানসই। ‘ফাবি আইয়্যি আলায়ি রব্বিকুমা তুকাজ্জিবান’। যার অর্থ, ‘আর তোমরা রবের কোন কোন নিয়ামতকে অস্বীকার করবে!’ কাতারের যে সত্যিই তা অস্বীকারের কোনো সুযোগ নেই!

বিশ্বকাপ ফুটবল মানেই বাড়তি উত্তেজনা, উন্মাদনা। সেই রোমাঞ্চের পারদ এবার আরেকটু বাড়িয়ে, নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে এবারই প্রথম কোনো মুসলিম দেশ হতে যাচ্ছে ফুটবলের এই ‘বিশ্বযুদ্ধ’। নতুনত্ব আছে আরো। ফুটবল বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রতিবারই যেখানে আসর বসেছে গ্রীষ্মকালে (জুন-জুলাই), সেখানে মরূর দেশে হচ্ছে শীতকালে (নভেম্বর-ডিসেম্বরে)! গোটা বিশ্বের ট্যাড়া চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেবার অনেক চ্যালেঞ্জ নিয়েই পেট্রো-ডলারের তেল উৎপাদনশীল দেশটি উঠে পড়ে লেগেছিল। যার দৈলতে আয়োজক স্বত্ব পাওয়ার পর থেকে গত ৫ বছরে সাড়ে ৬ বিলিয়ন ডলারের দৃষ্টিনন্দন ৮টি স্টেডিয়াম। যার প্রতিটিই সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত! তার একটি আল বায়েত স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৮টায় বসতে যাচ্ছে বর্ণিল এই উদ্বোধনী আয়োজন। দোহার কেন্দ্র থেকে ৪০ কিমি দূরে আল খোরে সেই স্টেডিয়ামে ৬০ হাজার দর্শক উপভোগ করতে পারবেন রঙিণ এই অনুষ্ঠান।

আপনার মতামত লিখুন :