ধর্মপাশার পাইকুরাটিতে মৃত সেই তরুণের করোনা ছিলনা

প্রকাশিত : ৩ মে ২০২০

হাওরাঞ্চল প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের জিংলীগড়া গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে বিদ্যা মিয়া (১৮) নামের এক তরুণের জ্বর-শ্বাসকষ্ট ও জন্ডিস নিয়ে মৃত্যু হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মঙ্গলবার ভোর সাড়ে তিনটার দিকে তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও তরুণের পারিবারের সদস্যদের সংঙ্গে কথা বলে জানা যায়,১০/১২ দিন আগে উপজেলা জিংলীগড়া গ্রামের কৃষক মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে বিদ্যা মিয়া (১৮) নিজ বাড়ির সামনে টগার হাওরে বোরো জমিতে ধান কাটা অবস্থায় জ্বরে আক্রান্ত হন। গত ২৭ এপ্রিল সন্ধ্যায় অস্বাভাবিক জ্বর থাকায় স্থানীয় চিকিৎসকদের পরামর্শক্রমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে তাকে ভর্তি করা হয়। এমতাবস্থায় রাত সাড়ে নয়টার দিকে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে ভোর সাড়ে তিনটার দিকে সে মারা যায়। সম্প্রতি কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করা হয় অই তরুণ করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যায়।

এ অবস্থায় স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্য আতংক ও ভীতি ছড়িয়ে পড়ে,গ্রামবাসী তাদের কে এক ঘরে করে রাখতে বাধ্য করেন,গত বৃহস্পতিবার রাত নয় টার দিকে,ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ধর্মপাশা উপজেলা সাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ঝন্টু সরকার কে জানানো হয় যে মৃত বিদ্যা মিয়া করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না।

মৃত বিদ্যা মিয়ার বাবা মোফাজ্জল হোসেন বলেন আমার ছেলে মৃত বিদ্যা মিয়ার করোনা ভাইরাস ছিল না, সাধারন জ্বর -শ্বাসকষ্ট ও জন্ডিস ছিল । এটাকেই বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করে ঘুলাটে পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে,ফলে আমাদের পরিবারের ও আত্বীয় স্বজন সকল কে বিপাকে পরতে হয়েছে হাটবাজেরেও আমারা যেতে পারছিনা, কোন রকম খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের এব্যাপারে সু দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প.কর্মকর্তা ডাঃঝন্টু সরকার বলেন, যে কেও সর্দি জ্বর কাশি ও শ্বাস কষ্টে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করলেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলা যাবেনা।
 

আপনার মতামত লিখুন :