ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মার তিরোধান দিবস পালিত

প্রকাশিত : ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১

দিনাজপুর প্রতিনিধি :

প্রতি বছরের মতো এবারও নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পালিত হলো ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মার ৮৬ তম তিরোধান দিবস। শনিবার সুইহারী পার্থ সারথী মন্দির প্রাঙ্গনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিনাজপুর জেলা ক্ষত্রিয় সমিতির আয়োজনে ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মার প্রতিকৃতিতে পুষ্প অর্পণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, গীতাপাঠ ও শ্রী কৃষ্ণের পূজার্চনা অনুষ্ঠিত হয়।

ক্ষত্রিয় সমিতির সভাপতি বিশিষ্ট শিশু চিকিৎসক ডা. বসন্ত কুমার রায়ের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মৃতুঞ্জয় কুমার রায়।

ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মার সারা জীবনের কর্মকান্ড নিয়ে আলোচনা করেন সাবকে ব্যাংক কর্মকর্তা কংস নাথ অধিকারী, মাধব চন্দ্র রায়, উমা কান্ত রায়, ডা. নির্মল রায় ও ঘনশ্যাম রায়া। বক্তারা বলেন, ক্ষত্রিয় জন জাতীর মহানায়ক, পথ প্রর্দশক, সংস্কারক এবং ক্ষত্রিয় জাতীর অগ্রসেনানী, ক্ষত্রিয় সমিতির প্রতিষ্ঠাতা ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মা ছিলেন একজন অসম্প্রদায়িক চেতনার মানুষ।

ক্ষত্রিয় সমাজের উন্নয়নে ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মার নেতৃত্বে ১৯১০ সালে ১ মে ক্ষত্রিয় সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়। নির্যাতিত নিপীড়িত এবং অবহেলিত এই ক্ষত্রিয় জাতি যখন উচ্চ বর্ন হিন্দু ও বৃটিশ সরকারের বৈষম্যের শিকারে পরিণত হয় ঠিক তখন ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা এক প্রদীপ্ত শিখার ন্যায় ক্ষত্রিয় জাতিকে জাগ্রত করার সংগ্রামে অবতীর্ণ হন এবং বৃটিশ সরকার ক্ষত্রিয়দের বন্ধু হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৩৫ সালে ঠাকুর পঞ্চানন বর্ম্মা পরলোক গমন করেন।

আপনার মতামত লিখুন :