ডোমারে জিআর প্রকল্পের ০৮ মেঃ টন চাউল বিতরণ করলেন মেয়র দানু।

প্রকাশিত : ১ মে ২০২০

রবিউল হক রতন, ডোমার (নীলফামারী)প্রতিনিধি:  নীলফামারীর ডোমারে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ঘোষিত জিআর প্রকল্পের বরাদ্দকৃত ০৮ মেট্রিক টন চাল ও নগদ অর্থ ৬৪ হাজার টাকা ০৮ শতাধিক মানুষের মাঝে  বিতরণ করেন ডোমার পৌর প্রশাসন। 
করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে উপজেলার সকল  হাট-বাজার, দোকান পাট ও যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে সাধারন মানুষ । এই দুস্থ্য, কর্মহীন ও নি¤œ মধ্যবিত্ত  মানুষদের সহায়তা দিতে সরকার ৫ম ও ৬ষ্ঠ ধাপে জিআর প্রকল্পের  ০৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দিয়েছেন ।
 বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) বিকালে পৌর মেয়রের চাতালে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে অসহায় ,নির্মান শ্রমিক,রিক্সভ্যান শ্রমিক,মটর শ্রমিক, কুলি শ্রমিক,হোটেল কর্মচারী,অটো শ্রমিক,ডেকোরেটর শ্রমিক, বাস মিনিবাস শ্রমিক,কার-মাইক্রো শ্রমিক,লোড-আনলোড শ্রমিক,দর্জি,মুচি,সেলুন কর্মচারী সহ দুস্থ্য, কর্মহীন ও নিম্ম মধ্যবিত্ত  মানুষের মাঝে চাল,সাবান ও নগদ অর্থ  বিতরন করেন পৌর মেয়র আলহাজ্ব মনছুরুল ইসলাম দানু । 
এ সময় দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসাবে, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আনিছুজ্জামান, ডোমার বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল আলম, হলহলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক মানিকসহ সকল কাউন্সিলরগণ উপস্থিত ছিলেন। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর ৩জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ও মেয়রসহ তাদের তালিকা ভুক্ত ০৮ শত লোকের মাঝে মাথা পিছু ১০ কেজি করে  চাউল নগদ অর্থ ৫ম ধাপে ১শত টাকা ৬ষ্ঠ ধাপে ৬০ টাকা ও ১টি করে সাবান বিতরণ করা হয়।
 পৌর মেয়র আলহাজ্ব মনছুরুল ইসলাম দানু জানান, এর আগে প্রথম পর্বে ২ এপ্রিল সরকারের বরাদ্ধকৃত জিআর প্রকল্পের ২ মেঃটন চাউল বিতরণ করা হয়েছে ৪ শত মানুষের মাঝে । দ্বিতীয় ধাপে ৯ এপ্রিল  ৫ মেঃ টন চাউল  ৫ শতাধিক পরিবারকে দেয়া হয়।৩য় ধাপে ৪ মেঃটন চাল ৪ শত মানুষের মাঝে বিতরন করা হয়েছে। বুধবার (২২ এপ্রিল) ১২মেঃটন চাল ১২শত মানুষের মাঝে বিতরন করা হয়। (৩০ এপ্রিল) বৃহস্পতিবার  ৫ম ধাপে ১৯/০৪/২০ইং স্বারক নং ১২০৪ মোট বরাদ্দ ০৪ মেঃটন চাল ও নগদ অর্থ ৪০ হাজার টাকা ও ৬ষ্ঠ ধাপে ২৩/০৪/২০ইং স্বারক নং ১২২৮ মোট বরাদ্দ ৪ মেঃটন চাল ও নগদ অর্থ ২৪ হাজার টাকা সর্বোমোট ০৮ মেঃটন চাল ও নগদ অর্থ ৬৪ হাজার টাকা ডোমার পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ০৮ শত অসহায় , দুস্থ্য, কর্মহীন ও নি¤œ মধ্যবিত্ত  মানুষের মাঝে বিতরন করা হয়। 
এছাড়া ও ডোমার পৌরসভা এলাকায় ১২শত কার্ডের মাধ্যমে সরকার ঘোষিত ওএমএস ডিলারের মাধ্যমে ১০টাকা কেজি দরে চাল বিক্রির কার্যক্রম শুরু হয়েছে । এর মধ্যে আরও ৬শত কার্ডের তালিকার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তাই তিনি  পৌর এলাকার সকল মানুষদের হতাশা না হয়ে নিজ নিজ বাড়ীতে থাকার আহবান যানান।

আপনার মতামত লিখুন :