পাঁচবিবিতে আলুর দরপতন

প্রকাশিত : ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

আকতার হোসেন বকুল, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) :

লাভের আশায় এবছর হিমাগারে আলু মজুত রেখে লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতির মুখে পরেছে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলাসহ আশেপাশের আলু ব্যবসায়ীরা। প্রতি বস্তা আলুর ক্রয় মূল্য, হিমাগর ভাড়া ও লেবার খরচ বাবদ ব্যবসায়ীদের ১,০৫০ টাকা খরচ হয়েছে। প্রতি বস্তার পাইকারি মূল্য এখন সাড়ে ৫শ থেকে ৬শ টাকা। ফলে প্রতি বস্তায় সাড়ে ৪শ থেকে ৫শ টাকা ক্ষতি হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি কিছু প্রান্তিক চাষিও হিমাগারে বীজের আলু রাখেন বলে জানান, আফিয়া কোল্ড ষ্টোরেজ (প্রাঃ) লি. এর ম্যানেজার জিয়াউর রহমান জিয়া।

উপজেলার আমিরপুর গ্রামের মৃত মতিয়ার রহমানের ছেলে আলু ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও পাঁচবিবির চাঁনপাড়ার আফিয়া কোল্ড ষ্টোরেজে ৬শ বস্তা আলু মজুত রাখেন। একই এলাকার মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে তোজাম্মেল হকও ৬শ বস্তা কাটিনাল জাতের আলু রাখেন। মৌসুম এলে ষ্টোরে রাখা আলুগুলো বাজারে বিক্রয় করে তারা একটু লাভ করত। কিন্তু মেহেদী ও তোজাম্মেলসহ একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, এখন বাজারে আলুর দাম ক্রয় দামের চেয়েও কম হওয়ায় আমাদের এবছর লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতি হবে। মেহেদী বলেন, আমার ৬শ বস্তা আলুর মধ্যে ২শ বস্তা দেড় মাস পূর্বে ৯শ টাকা করে বস্তা প্রতি বিক্রয় করলেও এখন মূল্য সাড়ে ৪শ থেকে ৫শ টাকা। আলু ব্যবসায়ী তোজাম্মেল আরো বলেন, এবছর আমার ৬শ বস্তা আলুতে প্রায় ৩ লক্ষ টাকা ক্ষতি হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. লুৎফর রহমান বলেন, এ উপজেলাটি আলু চাষের জন্য খুব উর্বর। এজন্য প্রতি বছর ফলনও ভালো হয়। গত বছর উপজেলায় ৭ হাজার হেক্টর জমিতে কৃষকরা দেশী-বিদেশী বিভিন্ন জাতের আলুর চাষ করেছিল।

আপনার মতামত লিখুন :