ফুলবাড়িয়ায় আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তানকে জামায়াত বানাতে অপপ্রচারের অভিযোগ

প্রকাশিত : ২৩ অক্টোবর ২০২১

ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিয়ে তোলপার হওয়া ঘটনাটি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র বলে দাবী করেছেন মনোনয়ন বঞ্চিত আতাহার আলী। তার দাবী তিনি কখনও জামায়াতের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হননি। বরং তিনি পারিবারিক ভাবেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের দল আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। অথচ এবার ইউপি নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাবার পর একটি চক্র হীন রাজনৈতিক চক্রান্তে তাকে জামাতের নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করে অপপ্রচার চালিয়েছে। স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ একাধিক ব্যক্তিও জানিয়েছেন আতাহার আলী মূলত রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানাযায়, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ফুলবাড়িয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পান আতাহার আলী। এ নিয়ে স্থানীয় রাজনীতিতে তার প্রতিপক্ষ গ্রুপ তার বিরুদ্ধে চক্রান্তমূলক অপপ্রচারে নামে। তারা আতাহার আলীকে জামায়াতে ইসলামের সাবেক ওয়ার্ড সদস্য হিসাবে আখ্যায়িত করে প্রচারণা চালায়। তারা জামায়াতের একটি ওয়ার্ড কমিটির তালিকা ঘষামাঝা করে সেখানে আতাহার আলীকে সদস্য হিসেবে উল্লেখ করে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে জামায়াতের নেতাকে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে দাবী করে তার নাম উল্লেখ করে ব্যাপক অপপ্রচার চালানো হয়।

এমন অপপ্রচারের কারণে পরবর্তীতে তার স্থলে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে অপর একজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়। আতাহার আলীর দাবী তিনি সারা জীবন বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস রেখে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথেই সম্পৃক্ত থেকেছেন। তিনি জাতীয় নির্বাচনে কখনও নৌকার বিরুদ্ধে ভোট দেন নাই। তার পরিবারে যোদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল হক লালু নামে তিনজন বীর মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন। পারিবারিক ভাবেই তারা আওয়ামী পরিবারের লোক। অথচ একটি মহল তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়েছে।

স্থানীয় আওয়ামীলীগের তৃণমূল পর্যায়ের একাধিক নেতা-কর্মী জানিয়েছেন, আতাহার আলী ইউনিয়ন ব্যাপী ব্যাপক জনপ্রিয় এবং ভবিষ্যতে সে রাজনৈতিকভাবে শক্ত অবস্থান হয়ে যাবার ভয় থেকে স্থানীয় একটি চক্র তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপ্রচার চালিয়েছে। তারা এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন।

 

আতাহার আলী

 

ফুলবাড়িয়া উপজেলা জামায়াতে ইসলামী আমীর ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা মোঃ ফজলুল হক শামীম জানান, আতাহার আলী কখনও জামায়াত করছে বলে তার জানা নেই। তাকে যে ওয়ার্ডে জামায়াতের সদস্য দেখিয়ে প্রচারণা চালানো হয়েছে তা সঠিক নয় বলে তিনি দাবী করেন।

যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম বলেন, আতাহার আলী আমার নাতি লাগে। আমাদের পরিবারে বিএনপি- জামাতের কোন লোক নেই। আতাহার আলী আওয়ামীলীগের সমর্থক ছিল। সে জামায়াত করার প্রশ্নই উঠে না।

আতাহার আলী জানান, বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ভালো এবং যোগ্য লোকদের কে নৌকার মনোনয়ন দিয়ে থাকেন। কোন অসৎ নেতাকে নেত্রী প্রাধান্য দেন না। সে হিসেবে সব দিক বিবেচনায় তিনি দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। একটি চক্র ঘৃণিত রাজনৈতিক চক্রান্ত হিসেবে তার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। তিনি বলেন, একটি চক্র যেভাবে তার নামে একটি মিথ্যা টেক লাগানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে তা খুবই দুঃখজনক। তিনি বিষয়টি সঠিকভাবে তদন্ত করে সুবিচার করার জন্য দলীয় হাই কমান্ডের প্রতি দাবী জানিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :