ঝালকাঠিতে মাঠে-ময়দানে কাউন্সিলর হাফিজ আল মাহমুদ

প্রকাশিত : ১৯ এপ্রিল ২০২০

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠি পৌরসভার কাউন্সিলর, সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাফিজ আল মাহমুদ নিরলসভাবে জনসেবায় মাঠেময়দানে কাজ করে যাচ্ছেন। করোনা ভাইরাসে মানুষ কর্মহীন ওয়ার পর পর প্রায় প্রতিদিনই অসহায় গরীব মানুষের পাশে গভীর রাতেও খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন তিনি।

ঝালকাঠিতে কয়েকজন হাতেগোনা জন প্রতিনিধি মাঠে ময়দানে কাজ করছেন। তার মধ্যে হাফিজ আল মাহমুদ' জনসেবা চোখে পড়ার মতো। তিন চাকার ভ্যান গাড়িতে চড়ে নিজ হাতে ত্রান সামগ্রী পৌঁছে দেন যুব নেতা। নিজ হাতে তৈরি করেন গরীব অসহায় মানুষের তালিকা প্যাকেট। মেধা বুদ্ধি খাটিয়ে সমবন্টন করেন ত্রান সামগ্রী।

নিম্ম মধ্যবিত্ত শ্রেণির লোকদের তালিকা করে গভীর রাতে ঘরের দরজায় কড়া নেড়ে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। যাতে অন্য কেহ জানতে না পারেন। কারো বিশেষ প্রয়োজনে ফোন পেলে তার কাছে ছুটে যান এই মানব দরদী লোকটি। জনসাধারণের প্রয়োজনে তার কাছে ধরনা ধরতে হয় না কাউকে হাফিজ আল মাহমুদ প্রতেক দিন একটা একটা করে ব্যাগ নিজ হাতে চেক করেন বিতরণের উদ্দেশ্য। ব্যাগে যাতে কোন আইটেম বাঁধ না পড়ে যায়। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে কাজে জীবনের ঝুঁকি আছে জেনেও থেমে নেই তিনি।

পূর্ব চাঁদকাঠী এলাকার সত্তুরোর্ধ রশিদ মিয়া জানান, জীবনে অনেক কমিশনার দেখেছি কিন্তু হাফিজের মত মানবতার সেবক কমিশনার পাইনি আমরা। এক এলাকার আরেক বিধবা বৃদ্ধা মমতাজ বানু বলেন, হাফিজ আমাদেরকে সন্তানের মত খোজ খবর নেয় এবং বিপদ আপদে ছুটে আসে। আমরা তার জন্যে সবসময় দোয়া করি

হাফিজ আল মাহমুদ জানান, “মরতে তো এক দিন হবেই তাই ভয় পেয়ে লাভ নেই। সতর্কতা অবলম্বন করে জন সাধারণের অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি ইনশাআল্লাহ। মানুষ আমাকে ভালোবাসে, সেই ভালোবাসার পরীক্ষার সময় এসেছে। আমাকে জনগনের ভালবাসার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। জনসেবা করে আমি আনন্দ পাই। বর্তমান বৈষ্যিক বিপদ জেনে শুনেও মানবতার জন্যে মাঠে আছি থাকবো ইনশাআল্লাহ।মানবদরদী এই কাউন্সিলর সকলের নিকট দোয়া আশির্বাদ কামনা করেছেন তার কর্মযজ্ঞ সমাপ্তি করার জন্য

 

আপনার মতামত লিখুন :