তেলিগাতীতে অসামাজিক কাজ, ২জনকে পুলিশে সোপর্দ

প্রকাশিত : ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০

খুলনা সদর প্রতিনিধি : আড়ংঘাটা থানাধীন তেলিগাতী মধ্যপাড়ায় প্রবাসী শাহিন শেখের বাড়ীতে অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকায় মো. জুবায়ের হোসেন নামের এক পুলিশ সদস্য ও মো. রফিক শেখ নামের ফুলবাড়ীগেট জনতা ব্যাংক শাখার একজন কর্মচারীকে স্থানীয় জনতা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে, তেলিগাতী মধ্যপাড়ার আব্দুল জলিল শেখের পুত্র ওমান প্রবাসী শাহিন শেখের স্ত্রী সোনিয়া(২৬)এর বাসায় অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকায় দুটি কক্ষ থেকে সোনিয়া(২৬), নাজমা বেগম(৪০), পুলিশ সদস্য জুবায়ের হোসেন(২৮) ও ফুলবাড়ীগেট জনতা ব্যাংকের অস্থায়ী কর্মচারী (পিয়ন) মোঃ রফিক শেখ(৩০)কে স্থানীয় জনতা আটক করে। গত কয়েক দিন বাড়ীটিতে রাতে অপরিচিত দু’জনের আনাগোনা দেখে সন্দেহ হয়। এলাকাবাসী বাড়ীটি নজরদারীতে রাখে। ৯ সেপ্টেম্বর বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় ওমান প্রবাসী শাহিন শেখের স্ত্রী এক সন্তানের জননী সোনিয়ার কক্ষে মাগুরায় কর্মরত পুলিশের এক সদস্য মোঃ জুবায়ের হোসেনকে এবং পাশের অপর একটি কক্ষে সোনিয়ার চাচী শাশুড়ী পাঁচ সন্তানের জননী নাজমা বেগম(৪০)কে ফুলবাড়ীগেট জনতা ব্যাংকের অস্থায়ী কর্মচারী(পিয়ন), শিরোমণি দক্ষিণপাড়ার ইন্তাজ শেখের পুত্র রফিক শেখের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরে তাদেরকে গণধোলায় দেয়। পরবর্তিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। সুত্র জানায় সোনিয়ার সাথে জুবায়েরের দু’মাস আগে ফেইসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়। পরে সোনিয়ার আমন্ত্রণে গত ৭ সেপ্টেম্বর জুবায়ের ছুটি নিয়ে সোনিয়ার বাড়ীতে আসে একই সাথে নাজমা বেগমের আমন্ত্রণে রফিকও এখানে আসে। বাড়ীর অন্য সদস্যদের অনুপস্থিতিতে অপরিচিত দু’জনকে রাতে প্রবেশ করতে দেখে তাদের সন্দেহ হয়। বুধবার রাতে তাদেরকে হাতে নাতে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কাজী শহিদুল ইসলাম পিটো বলেন, আইন শৃংখলা বাহিনীর মধ্যস্থতায় সামাজিক ভাবে বিষয়টি মিটিয়ে ফেলা হয়েছে। এ ব্যাপারে আড়ংঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী রেজাউল করিম বলেন, স্থানীয় জনতা তাদেরকে আটক করে আমাদেরকে খবর দেয়। এই ঘটনায় কোন পক্ষ অভিযোগ বা মামলা না করায় আমাদের নিয়মের মধ্যে থেকে লিখিত নিয়ে তাদেরকে স্ব-স্ব অভিভাবকের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে আমাদের পুলিশ সদস্য এবং জনতা ব্যাংকের কর্মচারীকে যেহেতু আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া গেছে। পুলিশের ঐ সদস্য যে স্থানে কর্মরত রয়েছে সেখানের উর্ধতন কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে, একই সাথে ফুলবাড়ীগেট জনতা ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

আপনার মতামত লিখুন :