চার বছর ধরে সরকারী চাল আত্মসাতের অভিযোগে আদালতের মামলা

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০২০

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক বিগত ৪বছর ধরে ওএমএস বা ১০টাকা কেজি দরের চাল উত্তোলন এবং তা তালিকাভুক্ত দুস্থ্যদের না দিয়ে আত্মসাত করার দায়ে সংশ্লিষ্ট ওই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আদালত স্ব-প্রনোদিত মামলা হয়েছে। রবিবার দুপুর ১টায় কুষ্টিয়ার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক সিনিয়র জডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট সেলিনা খাতুন এর আদালত কর্তৃক ইস্যুকৃত ক্রিমিন্যাল মিসকেস নং ০১/২০২০ ফৌ:কা:বি: ১৯০(১)(সি) ধারায় আমলযোগ্য মামলার আদেশের কপি  সংশ্লিষ্ট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কুষ্টিয়া বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে বলে আদালত সূত্রে নিশ্চিত করেন।

আদালতসুত্রে জানা যায়, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১৪নং গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দবির উদ্দিন বিশ্বাস ও তার সহযোগীদের যোগসাজসে বিগত দীর্ঘ চার বছর ধরে গরীব দুস্থ্যদের জন্য সরকার নির্ধারিত খাদ্য সহায়তা প্রকল্পের ১০টাকা কেজি দরের সরকারী চাল উত্তোলন ও তা তালিকাভুক্ত দুস্থ্যদের না দিয়ে তা আত্মসাত করেছেন এমন নিউজ স্থানীয় গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা কুষ্টিয়ার বিজ্ঞ আদালতরে দৃষ্টিগোচর হয়।

উক্ত সংবাদে জানা যায় যে, করোনা ভাইরাস দুর্যোগে লকডাউনের মধ্যে কর্মহীন ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর খাদ্য সহায়তায় সরকারী উদ্যোগে গৃহীত খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী বাস্তবায়ন হচ্ছে কি না তা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পর্যক্ষেন কালে এই চাল আত্মসাতের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। হিসেব মতে, উল্লেখিত সময়কালে ৮শ কার্ডের অনুকুলে বরাদ্দকৃত প্রায় ৬শ মে:টন সরকারী চাল আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ইহা একটি ফৌজদারী অপরাধ। ফলে উক্ত বিষয়টি তদন্তপূর্বক আগামী ০২-০৬-২০২০ খ্রিঃ তারিখের মধ্যে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনসহ প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কুষ্টিয়া সদর থানাকে নির্দেশ দেওয়া গেল।”

এ ব্যপারে অভিযুক্ত সদর উ্পজেলার ১৪নং গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক দবির উদ্দিন বিশ্বাস মুঠোফোলে আলাপকালে বলেন, একটি মহল রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে সরকারী চাল আত্মসাৎ করেছি বলে মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ ছেপেছেন। পরে তারাই আবার আমার কাছে এসে মিমাংশা করে গেছেন। তবে আমার বিরুদ্ধে এবিষয়ে আদালতে মামলা হয়েছে তা জানিনা।

কুষ্টিয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মমকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা জানান, সরকারী চাল আত্মসাতের দায়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনে ইস্যুকৃত বিজ্ঞ আদালতের আদেশটি এখনও হাতে পায়নি। হাতে পেলে বিজ্ঞ আদালত নিদের্শিত প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :