পাংশায় সন্তানের হাতে মার খেয়ে বিচার চেয়ে বৃদ্ধ পিতা রশিদের কান্না

প্রকাশিত : ১০ মে ২০২২

রতন মাহমুদঃ স্বার্থের টানে জন্মদাতা পিতাও হয়ে যায় শত্রু। সেটাই যেন প্রমান করলেন রাজবাড়ীর পাংশা পৌর শহরের গুধিবাড়ী এলাকায় পিতাকে পেটানো মোঃ আনোয়ার হোসেন (৪০)।

নিজ জন্মদাতা পিতাকে পেটানোর এ ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার (৯ মে) সন্ধারাতে গুধিবাড়ী রশিদ মোড়ে বৃদ্ধ আব্দুর রশিদ শেখ (৬৫) এর নিজ বাড়ীতে।

রশিদ মোড়টি যার নামে নামকরন করা হয়েছিলো সেই রশিদকে উচ্ছেদ করে জমি-জমা ও ঘরবাড়ী দখল করার উদ্দেশ্যে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বয়সের ভারে নুয়ে পরা বৃদ্ধ রশিদ ও তার পরিবার।

এ ঘটনায় গত রাতে পাংশা মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান রশিদের পরিবার। বৃদ্ধ রশিদ বলেন, আমার বড় ছেলে আনোয়ার ও তার ছেলে স্বাধীন (১৮) আমাকে অনেক মেরেছে এবং আমার দোকানের জিনিসপত্র ভাংচুর করে নগদ ৩০ হাজার টাকা সহ স্বর্ণের চেন নিয়ে গেছে।

গত ১০/১২ বছর আগেও আমাকে মেরেছিলো। আমাকে তো ভাত কাপর দেয়ই না উলটো জমিজমা ও ঘরবাড়ী দখল করার জন্য আমাকে মারধর ও গালমন্দ করে। আমি আনোয়ারের বিচার চাই। ওর হাত থেকে আমাদের বাঁচান।

রশিদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, রশিদ প্রথম স্ত্রী মারা যাবার পর গত ৩০ বছর পূর্বে দ্বিতীয় বিবাহ করেন। প্রথম স্ত্রীর সন্তান রশিদ নিজ পরিবার সহ পাশেই বসবাস করেন। সৎ মা ও সৎ ভাই বোনদের পিতার সম্পদের অংশ থেকে বঞ্চিত করতেই পরিকল্পিতভাবে এ অত্যাচার চালিয়ে আসছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ মিথ্যা ওই ঘটনার সময় আমি বাড়িতে ছিলাম না। বরং আমার ছোট ভাই-ই আমার ছেলেকে কোপ দিয়ে হাত কেটে দিয়েছে। আর তাছাড়া ওই জমি ও বাড়ি তো আমার। ৩৬ বছর আগে আমার মৃত মায়ের নামে ও আমার নামে দিয়েছিলো আমার বাবা। আপনি আপনার বাবাকে মেরেছেন এমন অভিযোগ করেছে আপনার বাবা। এ কথার উত্তরে আনোয়ার বলেন, আমার বাবা ষ্ট্রোক করার পর থেকে উনার মাথায় সমস্যা আছে। উনার কথা বাদ দেন।

 

 

আপনার মতামত লিখুন :