কালিগঞ্জে ফোনে ডেকে এনে পিটিয়ে হত্যা: ১২দিনেও মামলার আসামীরা কেউ গ্রেপ্তার হয়নি

প্রকাশিত : ২৪ জুলাই ২০২১

মঞ্জুর হোসেন মিলন, গাজীপুর:

জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার মধ্যনারগানা গ্রামের যুবক এনামূল ইসলামকে ফোনে ডেকে এনে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা ঘটনার ১২দিন পরও মামলার আসামীদের কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। এনামুল ইসলামকে ১৩ জুলাই রাতে মুঠোফোনে ডেকে এনে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় চিহ্নিত আট আসামীর বিরুদ্ধে ১৫ জুলাই কালিগঞ্জ থানায় মামলা হয়। সে মধ্যনারগানা গ্রামের আব্দুল বাতেনের পুত্র।

পরিবার ও প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দরিদ্র আব্দুল বাতেনের পুত্র এনামুল ইসলাম বেকারত্ব ঘোচাতে এবং পরিবারে কষ্ট লাঘবে ঋণ করে ও আত্মীয়- স্বজনের সহায়তায় দুই লাখ সত্তোর হাজার টাকা জমা দিয়ে সৌদি আরবে যাওয়ার জন্য প্রস্ততি নিচ্ছিলেন।

গত ২১ জুন অনুষ্ঠিত জামালপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মাহবুবুর রহমান ফারুক মাস্টারের পক্ষে জোড়ালো ভূমিকা রেখেছিলেন এনামুল ইসলাম। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ভোটে বিজয়ী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান খায়রুল আলমের আত্মীয়রা ওই রাতেই এনামুল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে হত্যার হুমকী দিয়ে আসে। এর পর থেকে এনামুল আর বাড়ি থেকে বের হয়নি। ভেবেছিল কোনো রকম ঝামেলায় না জড়িয়ে সৌদি আরব চলে যাবেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ১৩ জুলাই রাত ৮টার দিকে একই গ্রামের সাইফুল ইসলামের পুত্র রিফাত কথা আছে বলে মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে যায়। পূর্ব পরিকল্পনা মতে একই গ্রামের বাসিন্দা মাসুদ, বাছির, লুৎফর রহমান সাগর, রিফাত, সাইফুল, সাকিব, নাছির ও মোক্তার দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারী পিটিয়ে ও কুপিয়ে রক্তাক্ত গুরুতর জখম করে। ১৪ জুলাই বুধবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার এক হাসপাতালে মারা যায়। এঘটনায় নিহতের আত্মীয় আলমঙ্গীর হোসেন বাদী হয়ে কালিগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আপনার মতামত লিখুন :