স্বাস্থ্য বিধি মেনে স্বল্প পরিসরে ব্যবসা করতে বাধা নেই: গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক

প্রকাশিত : ১০ মে ২০২০

গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ঃ সরকার ব্যবসায়ীদের বিপক্ষে নয়, দেশজুড়ে প্রাণঘাতী করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সরকারি নির্দেশনা ও শতভাগ স্বাস্থ্য বিধি মেনে স্বল্প পরিসরে গোপালগঞ্জে বিভিন্ন ব্যবসা পরিচালনা করতে ব্যবসায়ীদের কোন বাধা নেই। তবে জরুরি সেবা প্রদানকারী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ব্যতীত অন্য সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরকারি নির্দেশে সম্পূর্ন বন্ধ থাকবে।

তাই ব্যবসায়ীদের কথা ভেবে গোপালগঞ্জ শেখ কামাল স্টেডিয়াম বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ব্যবসায়ীদের জন্য প্রতিদিন সকাল ৯ টায় ও ক্রেতাসাধারণের জন্য সকাল ১০টায় গেট খুলে দেওয়া হবে। যা বিকাল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। প্রতিটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে তালিকা টানানোবাধ্যতামূলক, সবগুলো প্রবেশদ্বারের নিকটে সাবান/ হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও পানির পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখতে পৌরসভার মেয়রকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সকলেই হাত ধুয়ে অস্থায়ী বিকল্প এই মার্কেট থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী কেনাকাটা করবেন। জেলায় করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে এমন সিদ্ধান্তে উপনীত হতে গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসন বাধ্য হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা শুরুর পূর্বে গোপালগঞ্জ জেলার বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময়কালে গোপালগঞ্জ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি শাহিদা সুলতানা একথা বলেন। এছাড়াও তিনি জেলা পুলিশকে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জেলায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে কঠোর নির্দেশনা সহ শহরে প্রবেশের সব পয়েন্টে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ইজি বাইকে ৪ জনের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না, জরুরি প্রয়োজনে রেজিস্ট্রেশনকৃত মটর সাইকেলে চালক একাই চলাচল করতে পারবেন তবে পিছনে কাউকে বসানো যাবে না। 

জেলা ইসলামীক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালককে জেলায় অবস্থিত সকল মসজিদে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেন। 

জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালককে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা দেন।

এসময় পদোন্নতি প্রাপ্ত পুলিশ সুপার মো.আসলাম খান, পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী, জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ মোহাম্মদ রুহুল আমিন, জেলা সিভিল সার্জন ডা.মো. নিয়াজ মোহাম্মদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো.ইলিয়াছুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিসি) আব্দুল্লাহ আল বাকী, ২১ আনসার ব্যাটালিয়নের পরিচালক ও গোপালগঞ্জ জেলার জেলা কমান্ড্যান্ট ফেরদৌস আহাম্মদ, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী খ.মো.শরিফুল আলম, ডেপুটি জেলার রাহাত ইসলাম, জেলা চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি কাজী জিন্নাত আলী, জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক শামীম হাসান, গণমাধ্যমকর্মী শেখ মোস্তফা জামান, কে, এম, সাইফুর রহমান সহ জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :