নরসিংদীতে দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, সাংবাদিক সমাজে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০২০

নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদীতে বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল নিউজ টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিক হৃদয় খান ও গ্লোবাল টেলিভিশনের সাংবাদিক শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) শহরের সাটিরপাড়া এলাকার আ. বাছেদের পুত্র নুরে আলম নামের একজন বাদি হয়ে নরসিংদী সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

দুই সাংবাদিক সম্পর্কে পিতা পুত্র। তবে সাংবাদিক হৃদয় খান ও শফিকুল ইসলামের অভিযোগ, উদ্দেশ্যপণোদিত হয়ে হয়রানি করার জন্যই মিথ্যা মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিক সমাজ সহ সকল শ্রেণীপেশার মানুষ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সেই সাথে অনতিবিলম্বে মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন তারা।

এ ব্যাপারে নিউজ টোয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি হৃদয় খান বলেন, মামলার বাদী তার অভিযোগে উল্লেখ করেছেন আমি আমার ব্যক্তিগত ফেইসবুক আইডি (জবফড়ু কযধহ) থেকে স্থানীয় সাংসদ নজরুল ইসলাম হিরু এবং এস এম কাইয়ুম এর নাম ব্যবহার করে মানহানীকর স্ট্যাটাস প্রদান করি। কিন্তু আমি আমার ব্যক্তিগত ফেইসবুক আইডি থেকে এরকম কোন স্ট্যাটাস দেই নি। সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

গত ১৮ এপ্রিল নরসিংদী চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আলী হোসেন শিশির চেম্বার ভবনের সম্মেলন কক্ষে পরিচালকদের উপস্থিতিতে প্রতিবাদ সভায় একটি বক্তব্য দেন। সেই বক্তব্যের ভিডিওটি বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।

ভিডিওটিতে চেম্বারের সভাপতি অভিযোগ করেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলার মুহূর্তে সময় স্বল্পতার জন্য সদরের এমপি’র নাম বলতে না পারায় তিনি আমার প্রতি ক্ষুব্ধ হন। এঘটনায় তিনি জেলা আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত নেতা এসএম কাইয়ুমের সমন্বয়ে তাঁরই আশীর্বাদপুষ্ট কয়েকজন নামধারী শ্রমিক নেতাদের মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করিয়েছেন।’ এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান চেম্বারের সভাপতি।

চেম্বারের সভাপতির এমন বক্তব্যের ভিত্তিতে নিউজ সময়.কম, নরসিংদী প্রতিদিন.কম, ব্রেকিং নিউজ.কম.বিডি, সময়ের কণ্ঠস্বর, নরসিংদীর অপরাধ কণ্ঠ, নরসিংদীর ই-পত্রিকা সহ অন্যান্য গণমাধ্যমে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। সেখানে সাংবাদিক হৃদয় খান ও শফিকুল ইসলামের নিজস্ব কোন বক্তব্য নেই। তারপরও তাদের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্য প্রণোদীত হয়ে হয়রানির করার জন্য আইসিটি আইনে মিথ্যা মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :