কঠোর নিরাপত্তায় শুরু হচ্ছে বিজয়নগরে ৫৭টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব

প্রকাশিত : ১০ অক্টোবর ২০২১

আলমগীর হোসেন, বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি:

বিজয়নগরে হিন্দু তথা স্বনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গা উৎসব কাল থেকে শুরু হচ্ছে। বছর ঘুরে আবারো হিন্দু তথা স্বনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রাণের শারদীয় দূর্গা পূজার আগমনের সুবাতাস বইতে শুরু করেছে।
সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্বাপেক্ষা বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হচ্ছে কাল। এ বছর বিজয়নগর উপজেলা সর্বমোট ৫৭টি পূজামন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজার আয়োজন করা হয়েছে।

পূজা নিরাপত্তা জোরদারের জন্য স্থায়ীভাবে প্রতিটি পূজামণ্ডপে গ্রাম পুলিশ সার্বক্ষণিক উপস্থিত থাকবে। পুলিশের ১১ টি মোবাইল ঠিম,আনসার ও ভিডিপি সদস্য ৯২ জন সদস্যের ৮ টি মোবাইল ঠিম সার্বক্ষণিক টহলের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে। একই সাথে পূজা চলাকালীন সময়ে ঝুকিপূর্ণ স্থানগুলোতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিয়মিত টহল অব্যাহত রাখবেন বলে জানান ।

বিজয়নগর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চৌধুরী জানিয়েছে, আগামীকাল সোমবার থেকে উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে শুরু হচ্ছে আমাদের ধর্মীয় সর্বোচ্চ উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা। এ বছর বিজয়নগর উপজেলায় ৫৭ টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইতোমধ্যে চোখ ধাঁধাঁনো পুজো মন্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরি সম্পন্ন, সাজানো, মঞ্চসজ্জ্বা ও তোরণ নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। আশা করছি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সবার সহযোগিতায় নির্বিঘ্নে উপজেলার প্রতিটি পূজা মণ্ডপে পূজা সমাপ্ত করতে পারব।

হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ এ ধর্মীয় উৎসবকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে উপজেলায় ভিন্ন আমেজ বইতে শুরু করেছে। বিশেষ করে পূজা উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে উৎসাহ-উদ্দীপনা ও আনন্দঘন পরিবেশে শারদীয় দুর্গা উৎসব উদযাপনের লক্ষ্যে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে, এবার প্রতিমা তৈরিতে খরচ বেড়েছে। এঁটেল মাটি, বাঁশ, সুঁতলীর দাম বাজারে অনেক চড়া। ফলে প্রতিমা তৈরিতে প্রয়োজনীয় সামগ্রীসহ প্রতিমা ভাস্কররাও তাদের মজুরি বাড়িয়ে দিয়েছেন। তারপরও থেমে নেই হিন্দু সম্প্রদায়ের এ সর্ববৃহৎ উৎসব আয়োজনের। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আগামীকাল সোমবার শারদীয়া দুর্গাদেবীর বোধন ও ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে পূজা অনুষ্ঠান শুরু হবে এবং ১৯ অক্টোবর বিজয়া দশমী পূজা শেষে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে এ উৎসবের সমাপ্তি হবে।

বিজয়নগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মির্জা মোহাম্মদ হাছান জানান, শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে উৎসব চলাকালীন সময়ে কঠোর নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। শারদীয় দুর্গা পূজা যাতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে হয় তার সমস্থ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

বিজয়নগর উপজেলার নির্বাহী অফিসার এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, এবার এই উপজেলায় মোট ৫৭টি পূজা মণ্ডপে শারদীয় দূর্গা পূজা উদযাপন হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পূজা সুন্দর পরিবেশে উদযাপন করার জন্য সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে এবং ইতিমধ্যে আমি পূজা উদযাপন কমিটির সাথে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ নিয়ে বৈঠক করে সব ধরনের নির্দেশনা দিয়েছি যাতে সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশে শারদীয়া দূর্গা উদযাপন হয়।

আপনার মতামত লিখুন :