করোনায় মৃত ব্যক্তিকে চিকিৎসা, চিকিৎসক, নার্স হোম কোয়ারেন্টিন

প্রকাশিত : ১৫ এপ্রিল ২০২০

নোয়াখালী প্রতিনিধি- করোনা অক্রান্ত হয়ে মৃত এক ইতালি প্রবাসিকে চিকিৎসা দেওয়ার তথ্য গোপন করে ও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে স্বাভাবিক চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালনা করায় নোয়াখালী জেলা শহরের প্রাইম হসপিটাল লিমিটেডকে লকডাউন করা হয়েছে। 

সোমবার রাত ১২টা থেকে পরবর্তী ১৪ দিনের জন্য এ লকডাউন করা হয়। এ সময় বেসরকারি হাসপাতালটি খালি করে জীবাণুমুক্ত করতে এবং সকল চিকিৎসক, নার্স ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে রাখতে বলা হয়েছে।

সোমবার রাত ১০টার দিকে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মোমিনুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রাইম হসপিটাল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে পাঠানো এক পত্রে এ আদেশের কথা জানানো হয়। 

জেলা সিভিল সার্জন সূত্রে যানা যায়, গত ৫ এপ্রিল প্রাইম হসপিটালের ৫০৪ নং রুমে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার ইতালি প্রবাসি মোরশেদ আলমকে (৪৪) ভর্তি পর চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়। কিন্তু রোগীর করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহের জন্য সিভিল সার্জন অফিসকে বিষয়টি অবহিত করা হয়নি। পরবর্তীকালে রোগীটি ঢাকায় মারা যায় এবং ঢাকায় তার করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। করোনায় মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পরও হাসপাতালে যে ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা তা না মেনে স্বাভাবিক চিকিৎসা কার্যক্রম চালিয়ে যায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তাই জনগণের সার্বিক নিরাপত্তা এবং ভর্তিকৃত রোগীদের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রতিষ্ঠানটিকে ১৩ এপ্রিল রাত ১২টা থেকে পরবর্তী ১৪ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা হয়। বিনা ব্যর্থতায় এ আদেশ পালন করতে হবে।

সুধারাম মডেল থানা পুলিশকে পত্রের অনুলিপি দিয়ে এ ব্যাপপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়। সুধারাম মডেল থানার ওসি নবীর হোসেন জানান, রাতেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে হাসপাতালাটি খালি করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :