সীতাকুণ্ডে শতভাগ বেতনের দাবিতে কারখানা শ্রমিকদের বিক্ষোভ

প্রকাশিত : ১০ মে ২০২০

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ির বার আউলিয়াস্থ মারস্ টেক্সটাইল লিমিটেড নামক একটি বেসরকারী কারখানায় শতভাগ বেতনের দাবিতে দুইদিন ধরে আন্দোলন করছেন এক হাজারের অধিক শ্রমিক।

গতকাল শনিবার রাত থেকে শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে আজ রোববার সকালে কারখানার সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন। শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উক্ত প্রতিষ্ঠানটি দেশে করোনা ভাইরাসের কারণে সরকার ঘোষিত লকডাউনের ফলে গত এপ্রিল মাসে কারখানাটি ২৩ দিন বন্ধ ছিল। বিজিএম এর হিসাব মতে ৭ দিন মিল খোলা ছিল সেই কয়দিন পূর্ণ হারে বেতন পাবে এবং বাকি ২৩ দিন মিল ৬৫% হারে বেতন দেবেন।

শনিবার দুপুরে কারখানা কর্তৃপক্ষ এপ্রিল মাসের বেতনের ৬০ শতাংশ দেওয়া হবে বলে একটি নোটিশ টাঙিয়ে দেন। শ্রমিকেরা কারখানায় কাজে যোগ দিতে গিয়ে নোটিশটি দেখে আন্দোলন শুরু করেন। শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, আমরা খেটে খাওয়া শ্রমিক, আমাদের যে বেতন দেওয়া হয় তা দিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। তারমধ্যে বেতন কেটে ফেললে আমরা চলবো কেমনে। এমনিতে এই কারখানাতে বছরে বেতন বাড়ে মাত্র ২/৩ শত টাকা।

বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারণে সব কারখানায় নিরাপাত্তা ব্যবস্থা বাড়ানো হয়েছে, অথচ এখানে শ্রমিকরা কাজ করছে চরম ঝুঁকির মধ্যে। এদিকে আজ সকালে কারখানা প্রাঙ্গণে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বসেন কর্তৃপক্ষ। এতে উপস্থিত ছিলেন, সীতাকুণ্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ফিরোজ হোসেন মোল্লা, ইন্টেলিজেন সুমন বনিক, কারখানা কোম্পানী প্রতিনিধি এবং শ্রমিক প্রতিনিধি। বৈঠকে শ্রমিকদের দাবী মেনে নেওয়ার বিষয়টি জানালেন মডেল থানার ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্লা।

এব্যাপারে জানতে চাইলে মারস্ টেক্সটাইলের সিনিয়র ম্যানেজার হুমায়ুন বলেন, সরকার কর্তৃক দেওয়া ৬০% বেতনের একটি নোটিশ আমরা লাগানোর পর শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে আন্দোলন করে। আজ সকালে প্রশাসন, শ্রমিক বৈঠকের মাধ্যমে বিষয়টি সুরহা হয় এবং শ্রমিকরা কাজে যোগদান করেন। উল্লেখ্য যে, মারস্ টেক্সটাইলে নারীসহ এক হাজারের অধিক শ্রমিক কর্মরত আছে।

আপনার মতামত লিখুন :