রাউজানে কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা

প্রকাশিত : ১৭ জুন ২০২০

নেজাম উদ্দিন রানা, রাউজান (চট্টগ্রাম): সূর্যের প্রচন্ড তাপ ও গরমে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। তার উপর পবিত্র মাহে রমজানের রোজা। তপ্ত দুপুরে প্রচন্ড ভ্যাপসা গরম ও তাপদাহ উপেক্ষা করে চট্টগ্রামের রাউজান ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের হরিসখান পাড়ায় কামলা সংকটে মাঠে পাকা ধান ঘরে তুলতে না পারা কৃষক খোরশেদ আলমের ধান কাটতে মাঠে নেমেছেন রাউজান উপজেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

এ সময় উপজেলা ছাত্রলীগের ধান কাটা কর্মসূচিতে উদ্বোধক হিসেবে তাদের সাথে ধান কাটায় যোগ দেন রাউজান পৌর প্যানেল মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে তীব্র গরমে মাঠে কাস্তে হাতে নিয়ে ধান কাটার পর আটি বেঁধে কাটা ধানগুলো মাথায় করে কৃষকের বাড়ি পৌঁছে দেন তারা। নিজের জমিতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দদের ধান কাটতে দেখে খুশীতে উজ্জল হয়ে উঠে কৃষক মোঃ খোরশেদ এর মুখ।

এ সময় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ ধান মাড়াইসহ অন্যান্য খরচের জন্য কৃষক খোরশেদকে পাঁচ হাজার টাকার অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌর প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন, করোনা ভাইরাসের এই সংকটকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে, রাউজানের সাংসদ এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরীর পরামর্শে ও সাংসদপুত্র ফারাজ করিম চৌধুরীর অনুপ্রেরণায় উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ একজন কৃষকের পাশে যেভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন এটি অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার।

এই ধরনের কর্মকান্ডের কারণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি দিন দিন সমুজ্জল হচ্ছে। এই ধরণের কর্মসূচিতে অংশ নিতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। দলীয় নেতৃবৃন্দদের নিয়ে কৃষকের ধান কাটা প্রসঙ্গে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ বলেন, রাউজানের সাংসদ এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী ও সাংসদপুত্র ফারাজ করিম চৌধুরীর আহবানে আমরা রাউজানে করোনাকালীন সময়ে কোনো কৃষক যাতে কষ্ট না পায় সে জন্য উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতা-কর্মী প্রস্তুত আছি ।

আজকে কৃষক খোরশেদ এর আহবানে আমরা উনার জমির ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছি। রাউজানের কোথাও কোন কৃষক যদি কামলা অথবা অর্থের সমস্যার কারণে জমির ধান ঘরে তুলতে না পারেন আমরা খবর পেলেই নিজেদের উদ্যোগে কৃষকদের জমির ধান কেটে তাদের বাড়ি পৌঁছে দেবো। নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করে কৃষক মোঃ খোরশেদ বলেন, আজকে ছাত্রলীগের ভাইয়েরা আমার জমির ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে। আমি খুব খুশী হয়েছি।আমি ওদের জন্য দোয়া করছি।

এ সময় ধানকাটা কর্মসূচীতে মাঝে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ, সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন চৌধুরী পিবলু,মো. এখতেয়ার উদ্দিন মেম্বার, সহ-সভাপতি মনির তালুকদার, তানভীর হোসেন চৌধুরী, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আসিফ, নাছির উদ্দিন, রাউজান বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহমুদ,আকাশ বড়ুয়া রাজ, ইকবাল হোসেন ইমন,রিপন দাশ, জিসান, মো. সাফাত, রোমেন ম্যাক্স।কামলার অভাবে মাঠের ধান ঘরে তুলতে না পারা একজন কৃষকের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়ানোয় ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি আরো উজ্জল হলো প্রান্তিক জনপদে।

আপনার মতামত লিখুন :