লকডাউনেও হালদা নদীতে ২৪তম ডলফিনের অপ্রত্যাশিত মৃত্যু, হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত : ৯ মে ২০২০

চট্টগ্রাম ব্যাুরো : করোনার মহামারির মধ্যেও দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র মৎস্যপ্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে অপ্রত্যাশিত (আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে) মৃত্যু হয়েছে ২৪ তম ডলফিনের।হালদা বিশেষজ্ঞরা ডলফিনটিকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে বলেন, গত ২১ মার্চ ২৩ তম ডলফিনের মৃত্যুর ১ মাস ১৮ দিন পর ২৪ তম ডলফিনের মৃত্যু হলো।

৮ মে শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টা ১৭ মিনিটে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজের টাইমলাইনে মৃত ডলফিনের কয়েকটি ছবিসহ একটি পোস্ট করে হত্যার অভিযোগ করেন হালদা বিশেষজ্ঞ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনজুরুল কিবরীয়া। তিনি তার পোস্টে উল্লেখ করেন হালদা নদীতে আরেকটি ডলফিনকে নৃশংসভাবে হত্যা হয়েছে।

রাউজান উপজেলার উরকিরচর ইউনিয়নের জিয়া বাজার এলাকার ছায়ারচর নামক স্থানে আজ ৮ মে সকালের দিকে ডলফিনটিকে হত্যা করা হয়।৫ ফুট ২ ইঞ্চি দৈর্ঘ্য এবং ৫২ কেজি ওজনের মৃত ডলফিনটিকে মাথা বরাবর আড়াআড়িভাবে এবং ঘাড় থেকে লেজ পর্যন্ত দৈর্ঘ্য বরাবর কাটা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের এই চিহ্ন বিগত সময়ের মৃত ডলফিনগুলোর চেয়ে একটি নতুন ইংগিত বহন করে। কোন জেলের অবৈধ জালে আটকা পরলে ডলফিনটিকে ডাঙ্গায় তোলা হয় এবং কেটে চর্বি নেয়ার চেষ্টা করা হয়।

এই ঘটনাটি হালদা নদীর ডলফিন সংরক্ষণের জন্য একটি অশনি সংকেত বলে মনে করছেন হালদা বিশেষজ্ঞ ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনজুরুল কিবরীয়া। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ডলফিনের চর্বি বা তৈল বিভিন্ন রোগের প্রতিষেধক এমন কিছু কুসংস্কার গ্রামের মধ্যে আছে। যার ফলে অবৈধ জালে আটকা পড়া ডলফিনটিকে নদী থেকে ডাঙ্গায় তুলে তার থেকে চর্বিগুলো ব্যবহারের জন্য ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছে দুস্কৃতিকারীরা।

সকালের দিকে সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে আইডিএফ-এর কর্মী মিমু দাস এবং স্বেচ্ছাসেবক রওশনগীর দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃত ডলফিনটি উদ্ধার করে গড়দুয়ারা এলাকায় আইডিএফ অফিসে নিয়ে যায়। প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর মৃত ডলফিনটিকে মাটি চাপা দেয়া হয়। চট্টগ্রাম রিপোটার্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নদী গবেষক সাংবাদিক আলীউর রহমান বিপন্ন প্রাণী ডলফিন হত্যা প্রসঙ্গে বলেন, প্রশাসনের চোখের সামনেই যেহেতু এসব চলছে, সেহেতু দায় প্রশাসনকেই নিতে হবে। এই গুরুতর অপরাধ বন্ধে হালদায় নিষিদ্ধ জাল ও নৌযান চলাচলের বিরুদ্ধে দ্রুত কঠোর অভিযান নিয়মিত চালানো দরকার। প্রাণিবৈচিত্র্যের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে ডলফিনের এই মৃত্যুকে ‘হত্যাকাণ্ড’ এবং সামগ্রিক পরিবেশ নস্যাতে ভূমিকা রাখা ফৌজদারি অপরাধের শামিল বললে অত্যুক্তি হবে না।

জানা যায়, গত ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের ৮ মে পর্যন্ত গত আড়াই বছরে হালদা নদীতে ২৪টি ডলফিনের মৃত্যু হয়েছে। প্রতিটি মৃত ডলফিনই হালদা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। কোনোটিকে এভাবে কেটে হত্যা করা হয়নি। ডলফিন নদী থেকে ধরে কেটে হত্যা করা এই প্রথম।

উল্লেখ্য সারা বিশ্বের বিভিন্ন নদীতে ডলফিন আছে মাত্র ১ হাজার ১০০টি। এর মধ্যে হালদাতে প্রায় ১৬৬ টি ডলফিন আছে। ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) হালদা নদীর ডলফিনের এই প্রজাতিকে অতি বিপন্ন (লাল তালিকাভুক্ত) হিসেবে চিহ্নিত করেছে। এগুলো বিশ্বের অতি বিপন্ন প্রাণী। ডলফিন যে নদীতে ডলফিন থাকে বোঝা যায় যে সে নদীটা জীবন্ত। তাই ডলফিন চলে গেলে মাছেরও ক্ষতি হবে বলে মনে করেন গবেষক ও সংশ্লষ্টরা।

বিশ্বের অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রাণী বাংলাদেশ হারাবে যদি সত্যিই ডলফিন চলে যায় বা আর না থাকে।মা মাছ ও লাল তালিকাভুক্ত অতি বিপন্ন ডলফিন রক্ষায় সরকার ২০১০ সালে চট্টগ্রামের নাজিরহাট থেকে কালুরঘাট পর্যন্ত হালদা নদীর প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকাকে জলজ প্রাণীর অভয়ারণ্য ঘোষণা করে।তবে রাউজান উপজেলার ছত্তার খালের মুখ থেকে হাটহাজারী উপজেলার মদুনাঘাট পর্যন্ত নদীর প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকা ডলফিনের মূল বিচরণক্ষেত্র।

 

আপনার মতামত লিখুন :