সীতাকুণ্ডে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান, ৪৮ হাজার টাকা জরিমানা

প্রকাশিত : ৫ মে ২০২০

কামরুল ইসলাম দুলু, সীতাকুণ্ড : পবিত্র মাহে রমযান উপলক্ষে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে বাজার মনিটরিং করা হয়। আজ মঙ্গলবার(৫ মে) সকাল ১০ থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত সীতাকুণ্ড উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।

এসময় ভ্রাম্যমান আদালতের নেতৃত্ব দেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আবু বকর সিদ্দিক। বাজার মনিটরিং এর মাধ্যমে সকল পণ্যের মূল্য স্বাভাবিক, স্থিতিশীল রাখতে এবং সরকারী নিয়ম নীতি পালন নিশ্চিত করতে নিয়মিত বাজার মনিটরিং এর অংশ হিসেবে উক্ত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয় বলে জানান তিনি।

অভিযানে উপজেলার বার আউলিয়া, মাদামবিবির হাট, ভাটিয়ারী বাজারে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ২টা পর্যন্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। এসময় বিভিন্ন মুদির দোকানে মূল্য তালিকা না থাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির উদ্দেশ্যে মজুদ রাখার অপরাধে মোট সাতটি মামলায় সাতজন দোকানীকে দোষী সাব্যস্ত করেন এবং তাৎক্ষণিক জরিমানায় দোষীদের আটচল্লিশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করা হয়।

এতে শীতলপুরের বগুলাবাজার ফারুক ষ্টোরকে ২০ হাজার, শীতলপুর ভাই ভাই ষ্টোরকে ৫ হাজার,বার আউলিয়া ষ্টোরকে ৫ হাজার, মাদামবিবিরহাট বিসমিল্লাহ্‌ ষ্টোরকে ৫ হাজার, মাদামবিবিরহাট জসিম ষ্টোরকে ৫ হাজার, ভাটিয়ারী সিদ্দিক ষ্টোরকে ৩ হাজার এবং ভাটিয়ারী সুমি ষ্টোরকে ৫ হাজার টাকা জড়িমানা করা হয়। এছাড়া পাইকারি মুদির দোকান গুলোকে আগামী কালের মধ্যে মূল্য তালিকা প্রদর্শন করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

এ সময় সেনাবাহিনীর টহল দল ও পুলিশ প্রসাশন উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে ম্যাজিস্ট্রেট আবু বক্কর সিদ্দিকি বলেন, প্রাইকারি মুদির দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ শিশুখাদ্য রাখা এবং বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের ক্রয় রশিদ না রাখায়সহ মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করে ব্যবসা পরিচালনা করছে। উপযুক্ত অপরাধের কারণে ভোক্তা অধিকার সংরকণ আইন, ২০০৯ ধারায় উক্ত অভিযান নিয়মিত চলবে।

আপনার মতামত লিখুন :