ফটিকছড়ির নানুপুর ও সুয়াবিল ইউপি নির্বাচন আ’লীগ-স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিরামহীন প্রচারনা, পিছিয়ে বিএনপি

প্রকাশিত : ১৭ অক্টোবর ২০২০

এম. জুনায়েদ, ফটিকছড়ি (চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার নানুপুর ও সুয়াবিল ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০শে অক্টোবর। প্রতীক বরাদ্দ হওয়ার পর থেকে দুই ইউনিয়নে আ’লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকেরা নেমে পড়েন প্রচার প্রচারণায়। স্ব স্ব প্রার্থীর পক্ষে দিন-রাত তারা মিটিং-মিছিলে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে নৌকা মার্কায় ভোট চাচ্ছেন আওয়ামী লীগ বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা। একই ভাবে স্বতন্ত্রপ্রার্থীরাও বসে নেই। দুই ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ব্যাপকভাবে প্রচারনায় ব্যস্থ সময় পার করছে। তাদের কর্মীরা এলাকার বিভিন্ন হাটবাজারে ও বাড়িতে গিয়ে ভোট চাচ্ছে। অন্যদিকে, দুই ইউনিয়নেই বিএনপি প্রার্থীরাও নামেন প্রচারণায়। ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে নেতা কর্মীরা ভোটারদের ধারে ধারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করলেও বড় কোন মিছিল মিটিং এখনো চোখে পড়েনি। কোথাও কোথাও তাদের প্রচার- প্রচারণার খবরও পাওয়া যায়নি। নানুপুর আ’লীগ প্রার্থী শফিউল আজম ও সুয়াবিলে, জয়নাল আবেদিনের নৌকার পক্ষে উপজেলা চেয়ারম্যান হুসাইন মোঃ আবু তৈয়ব ও উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক নাজিম উদ্দীন মুহুরী দুই বলয়ের নেতা-কর্মীরা গণসংযোগ করেছেন। তারা উভয় নৌকা প্রার্থীকে জয়ী করতে এলাকায় ভোটারদেও কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। সরেজমিনে এলাকায় বিভিন্ন ভোটারের সাথে কথা বলে ধারনা পাওয়া যায় এবারের দুই ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সাথে নৌকা মার্কার প্রার্থীদের সাথে হাড্ডহাড্ডি লড়াই হবে। সুয়াবিলে আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার এম.হায়াতের পক্ষে ব্যাপক জনমত রয়েছেন। তার পক্ষে এবার নির্বাচনের মাঠে দেখা যাচ্ছে আ’লীগ ও বিএনপির একটি পক্ষ, তাছাড়া জামায়াতসহ রয়েছে অনেক সাধারন মানুষ। একইভাবে নানুপরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমান উল্লাহ দীর্ঘ দিন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও মেম্বার থাকায় এলাকার সাধারন মানুষের সাথে তার যোগাযোগ রয়েছে। পরিচিতির সুবাধে শক্ত অবস্থানে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া মার্কর আমান উল্লাহ। তার পক্ষেও আ’লীগ বিএনপির একাংশ কাজ করছে। বিএনপির ধানের শীষে নানুপুরে মনোনয়ন পেয়েছে বিএনপির জয়নাল আবেদিন। সুয়াবিলে মনোনয়ন পেয়েছে এয়াকুব শহিদ। তাদের পক্ষে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক সরোয়ার আলমঙ্গীর কয়েকদিন প্রচারনা চালাতে দেখা গেলেও উপজেলার প্রথম সারীর অন্য কোন নেতাকে দেখা যায়নি। প্রচারনায় আ’লীগের চেয়ে পিছেয়ে বিএনপি। তবে ভোটের মাঠে বড় ধরনের বিপ্লব ঘটাতে পারেন বলেও মন্তব্য করেছেনে অনেকে।

আপনার মতামত লিখুন :