বাঁশখালীতে গণধর্ষণের শিকার তরুণী, থানায় মামলা

প্রকাশিত : ২৯ এপ্রিল ২০২০

চট্টগ্রাম ব্যাুরো : লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়ায় মায়ের সাথে ঝগড়া করে কাজের সন্ধানে বেরিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে ১৮ বছর বয়সী এক তরুণী। গত ২৭ এপ্রিল সোমবার রাতে চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বৈলছড়ি ইউনিয়ন ঘোণাপাড়া এলাকায় ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে। তবে গতকাল ২৮ এপ্রিল মঙ্গলবার ধর্ষিতা তরুনীর পিতা বাদি হয়ে বাঁশখালী থানায় মামলা দায়ের করার পর ঘটনাটি জানাজানি হয়।

থানা সূত্রে জানা যায়, এক তরুণীকে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ৩ জনের নাম উল্লেখ করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেছে ভিকটিমের পিতা। ধর্ষণের শিকার তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম চমেক হাসপাতালের ওয়ান এস্টপ ক্রাইসিসি (ওসিসি) পাঠিয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার দুপুরে পারিবারিকভাবে কথা কাটাকাটি শেষে মায়ের সাথে রাগ করে কাজের সন্ধানে ঘর থেকে বেরিয়ে যান উপজেলার গন্ডামারা ইউনিয়নের বড়ঘোনা গ্রামের বাসিন্দা ভিকটিম তরুণীটি। সড়কে যানচলাচল না থাকায় সে পায়ে হেটে একই উপজেলার পাশ্ববর্তী ইউনিয়ন বৈলছড়ির ঘোনাপাড়া এলাকার খালেদা আক্তার নামে এক নারীর ঘরে আশ্রয় নেন।

স্থানীয় বখাটে আব্দুল মজিদ, আবু তালেব ও অপর এক যুবকসহ তরুণীকে আত্মীয় পরিচয় দিয়ে এবং চাকুরির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে তরূণীকে তাদের বাড়ি পৌছে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে আশ্রিত বাড়ি থেকে নিয়ে যায়। বখাটেরা রাত ৯ টার দিকে চেচুরিয়া ৯ নং ওয়ার্ডের ঘোনাপাড়া জিত্তা পুকুরের উত্তর পার্শ্বে ম্যালেরিয়া ও গামারি গাছের বাগানে নিয়ে তরুণীকে গণ ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে থানা পুলিশ কে খবর দেয়।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তরুণীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে চিহ্নিত আসামিদের ধরতে অভিযানে নামে। থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মু. রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, এ মামলায় অভিযুক্ত আসামিরা চিহ্নিত হয়েছে। র্বতমানে তারা পালাতক আছে তবে আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে বলে তিনি জানান।

আপনার মতামত লিখুন :