নবীনগরে ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প বিলুপ্তির পথে

প্রকাশিত : ৪ মার্চ ২০২১
smart

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় এককালে মৃৎশিল্পের সুনাম ছিল কিন্তু নানা প্রতিকূলতার বর্তমানে নবীনগরের ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প বিপন্ন হতে চলেছে। এ উপজেলার নারায়ণপুর, ভেলানগর, ইব্রাহিমপুর, শ্রীরামপুর, বিটঘর গ্রাম মৃৎশিল্পের প্রাণ কেন্দ্র ছিল।

এ সব গ্রামে ন্যূনতম পক্ষে ৩০০০ মৃৎশিল্পী রাত দিন কাজ করত। তারা সুনিপুণ ভাবে হাড়ি, পাতিল, বাসন, ডাকনা, কলকে ও কলস, হরিন, হাতি, গরু,টব প্রভৃতি তৈরি করত তাদের তৈরি পুতুল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় সদর নয় ঢাকা জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায় সরবরাহ করতো।

কিন্তু বর্তমানে নানা প্রতিকূলতার শিকার হয়ে নবীনগরের মৃৎশিল্পীরা তাদের ঐতিহ্যবাহী পেশা ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে। এখন মাত্র শ’খানেক মৃৎশিল্পী তাদের পেশা কোন মতে আঁকড়ে ধরে আছে। তাদের পেশার দৈন্যদশরা সঙ্গে সংসার জীবনে বিরাট বিপর্যয় নেমে এসেছে।

মাটির তৈরি জিনিষের স্থান দখল করে নিয়েছে এলমনিয়াম ও প্লাস্টিকের তৈরি তৈজসপত্র। এর দাম বেশি হলে ও অধিক টিকশয়। তাই গ্রামের সাধারণ মানুষ এলমনিয়াম ও প্লাস্টিকের তৈরি তৈজসপত্র কিনে। এ ছাড়া মৃৎশিল্প তৈরীর উপকরণে দাম কয়েক গুণ বেড়ে যাওয়ায় উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পায়।

ফলে ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্পীদের ঋণের বোঝা ভারী হয়ে গেছে। নানা প্রতিকূলতায় অনেকেই পেশা ছেড়ে দিচ্ছে। তাই নবীনগর মৃৎশিল্প বিলুপ্তির পথে ।

আপনার মতামত লিখুন :