উজিরপুরে রসালো মালটা চাষে স্বাবলম্বী শ্যামল ব্যানার্জী

প্রকাশিত : ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

এসএম ওমর আলী সানি, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) :

বরিশালের উজিরপুরে রাসায়নিক মুক্ত রসালো মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী শ্যামল ব্যানার্জী। উপজেলার দক্ষিণ শিকারপুর গ্রামের সফল কৃষক গুরুদাস ব্যানার্জী ওরফে শ্যামল (৪২) ২০১৭ সালে ৩০ শতক জমির উপরে একটি মাল্টা বাগান তৈরী করেন। এই বাগানে বর্তমানে বারি মাল্টা-১ প্রজাতির ৬০টি পূর্ণ বয়স্ক মালটা গাছ রয়েছে। এ বছর ওই বাগান থেকে ৫০ মন মাল্টা বিক্রির আশা পোষণ করেন কৃষক শ্যামল ব্যানার্জী। রাসায়নিক, কেমিক্যাল ও ফরমালিনমুক্ত রসালো অত্যন্ত সুস্বাদু এই  মাল্টা ইতিমধ্যে বিক্রি শুরু করেছেন তিনি। ২৪ আগষ্ট মাল্টা বিক্রির উদ্বোধন উপলক্ষে ওই বাগানে উপস্থিত হন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাকির হোসেন তালুকদার, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার হালদার, ওই ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন। আরো উপস্থিত ছিলেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম তোফাজ্জেল হোসেনসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত পাইকার ও খুচরা ক্রেতারা।

 

এসময় কৃষক শ্যামল ব্যানার্জী বলেন, এই মাল্টা রাসায়নিক, কেমিক্যাল ও ফরমালিনমুক্ত রসালো অত্যন্ত সুস্বাদু হওয়ায় দাম একটু বেশি দিয়েও পাইকার ও খুচরা ক্রেতারা বাগান থেকে ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন। এ ছাড়া ইচলাদী বাসস্টান্ডে নিউ প্রগতি ট্রেডার্সের দোকানে পাইকারী ও খুচরা বিক্রয় করা হয়। পাইকারী ১৩০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। তিনি আরো জানান, ২০১৭ সালে এই মাল্টা বাগানটি তিনি তৈরী করেন। ২০১৮ সাল থেকে ফল বিক্রি শুরু হয়। এ বছর প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকার ফল বিক্রি করতে পারবেন বলে জানান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাকির হোসেন তালুকদার জানান, শ্যামল ব্যানার্জী অত্যন্ত সফল কৃষক। তিনি মালটা বাগানের পাশাপাশি আম, নারিকেলসহ বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ বৃক্ষের বাগান তৈরী করেছেন। প্রতিটি বাগানেই তিনি সফল হয়েছেন। উজিরপুরে ইতিমধ্যে শতাধিক মাল্টা বাগান তৈরী হয়েছে। স্থানীয়দের প্রয়োজন মিটিয়ে বিভিন্ন শহরে বিক্রি হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :