সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা : গয়েশ্বর

প্রকাশিত : ২৫ অক্টোবর ২০২১

ভোরের দর্পণ ডেস্ক:

দেশের বিভিন্ন স্থানে মন্দিরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের যে ঘটনা ঘটেছে তা সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। আজ সোমবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা-মন্দির ভাঙচুর ও লটুপাটের ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জড়িত। সরকারের প্রত্যক্ষ মদদে দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা হলেও বিএনপি নেতাদের পাশাপাশি শান্তিপ্রিয় মানুষকে টার্গেট করে মামলা দেওয়া হচ্ছে।’

টুঙ্গিপাড়া একটা গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা এবং সেখানেও একটি মন্দির ভাঙচুর করা হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘এখান থেকে অনুমান করা যায়, সরকার সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার মধ্য দিয়ে জনদৃষ্টিকে অন্যদিকে সরানো এবং তার স্বৈরাতান্ত্রিক ফ্যাসিবাদী মনোভাব দিয়ে তার ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করার প্রচেষ্টায় লিপ্ত।’

গয়েশ্বর আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ তার ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করতে এ ষড়যন্ত্র করেছে। স্পর্শকাতর সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার মধ্য দিয়ে জনদৃষ্টিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে ও ক্ষমতা দীর্ঘ করার হীন চেষ্টায় লিপ্ত সরকার। অসাম্প্রদায়িক চিন্তা লালন করে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে আমাদের।’

দেশের বিভিন্ন মন্দিরে হামলার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গেছে- এমন অভিযোগ করে গয়েশ্বর বলেন, ‘আমি রংপুরে গিয়েছিলাম। সেখানে হিন্দুরা বলেছে- হামলার পর পুলিশ এসেছে। কুমিল্লার একটি মন্দিরে তিনবার আক্রমণ হয়েছে। প্রতিবারই পুলিশ আক্রমণের পর এসেছে। মন্দিরে আগুন, ভাঙচুরের ঘটনায় এখনও আতঙ্ক কাটেনি। প্রশাসন গুরুত্ব না দেওয়ায় ছয় থেকে সাত ঘণ্টাব্যাপী তাণ্ডব চালায় দুষ্কৃতকারীরা। এখনো বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন জায়গায় মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর হচ্ছে।’

‘বাংলাদেশের ঘটনায় পশ্চিমবঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টির ভোট বাড়বে’- পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার বিরোধীদলীয় নেতা (বিজেপি নেতা) শুভেন্দু অধিকারীর এমন বক্তব্য সাম্প্রদায়িক এবং মৌলবাদের পরিচয় বলেও মন্তব্য করেন গয়েশ্বর।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, নিতাই রায় চৌধুরী, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বিএনপি নেতা গৌতম চক্রবর্তী, মীর সরাফত আলী সপু, আব্দুস সালাম আজাদ, আমিনুর রশিদ ইয়াসিন, শেখ ফরিদ উদ্দিন আহমেদ মানিক, অমলেন্দু দাস অপু, দেবাশীষ রায় মধু, মমিনুল হক, কামাক্ষা চন্দ্র দাস প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :