করোনা: মানসিক আতঙ্কে ভুগছেন গর্ভবতী নার্সরা

প্রকাশিত : ১৭ এপ্রিল ২০২০

রাজধানীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স সুমি আক্তার (ছদ্মনাম) চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতেও তিনি নিয়মিত হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করছেন। কিন্তু হাসপাতালের কয়েকজন সহকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় গর্ভজাত সন্তানের কথা চিন্তা করে মানসিক আতঙ্কে ভুগছেন তিনি।

 সঙ্গে আলাপকালে ওই নার্সের স্বামী (তিনিও একজন নার্স) বলেন, হাসপাতালের নার্সিং সুপারভাইজারকে তার স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা জানালেও বর্তমান পরিস্থিতিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা ছাড়া ছুটি দেয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন। এ অবস্থায় তার স্ত্রী মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন বলে জানান তিনি। এর প্রভাব গর্ভজাত সন্তানের ওপর পড়তে পারে ভেবে তিনি আরও দুশ্চিন্তায় ভুগছেন।

শুধু মিটফোর্ড হাসপাতালেই নয়, রাজধানীর অন্যতম বৃহৎ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ও কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালের কর্মরত অসংখ্য গর্ভবতী নার্সরা করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে মানসিক আতঙ্কে ভুগছেন। সঠিক সংখ্যা জানা না গেলেও এ সংখ্যা অর্ধশতাধিকের কম হবে না বলে বিভিন্ন সূত্রের দাবি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত পঞ্চাশেরও বেশি নার্স ইতোমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তাদের মধ্যে গর্ভবর্তী কেউ রয়েছেন কি-না সে সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যায়নি। আক্রান্ত নার্সদের সংস্পর্শে আসা ২০০ থেকে ২৫০ জন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

সোসাইটি ফর নার্সেস সেফটি অ্যান্ড রাইটস নামক একটি সংগঠনের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) পর্যন্ত বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে মোট ৪১ জন নার্স করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বিভিন্ন হাসপাতালের মধ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেছে ৩ জন, স্যার সলিমুল্লাহ মিটফোর্ডে ৫ জন, বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১ জন, বরিশালের বাবুগঞ্জ ইউনিয়ন হেলথ সেন্টারে ১ জন, নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যার হাসপাতালে ৪ জন, নারায়ণগঞ্জের ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে ১ জন, কিশোরগঞ্জের খালিয়াজুড়ির ইউনিয়ন হেলথ সেন্টারে ১ জন, গাজীপুরের কাপাসিয়ার ইউনিয়ন হেলথ সেন্টারে ৩ জন, জামালপুরের বকশিগঞ্জ ইউনিয়ন হেলথ সেন্টারে ১ জন, শ্যামলির ঢাকা শিশু হাসপাতালে ১ জন, গাজীপুরের কেপিজি হাসপাতালে ৪ জন,শাহবাগের বারডেম হাসপাতালে ১ জন, এভারকেয়ার হাসপাতালে (অ্যাপোলো) ১ জন, গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে ৩ জন, ধানমন্ডি পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২ জন, পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ৩ জন, মগবাজারের ইনসাফ বারাকাহ হাসপাতাল ৫ জন ও মিরপুরের ডেল্টা হাসপাতালে ১ জন।

আপনার মতামত লিখুন :