এপ্রিলেই মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ৩০ লাখ নতুন অ্যাকাউন্ট

প্রকাশিত : ২৯ এপ্রিল ২০২০

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ৩০ লাখ নতুন অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে এপ্রিলে। এগুলোর বেশিরভাগই পোশাক খাতের কর্মীদের। সরকার শ্রমিকদের অ্যাকাউন্টে এপ্রিল মাসের বেতন দেয়ার ঘোষণা দেয়ার পর অ্যাকাউন্ট খোলার হিড়িক পড়ে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) পরিস্থিতিতে লেনদেনেও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ওপর নির্ভরতা বাড়ছে মানুষের।

নানা সুবিধার কারণে দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের জনপ্রিয়তা বেশ। গ্রাহকের সংখ্যা বাড়ছে প্রতিনিয়তই। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কর্মীদের বেতন দিয়ে আসছিল বেশ কিছু পোশাক কারখানা

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সব পোশাক শ্রমিকেরই বেতন দেয়া হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে। সরকারি প্রণোদনার ঘোষণার পর বেড়েছে অ্যাকাউন্ট খোলার হার। ৬ থেকে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ৩০ লাখ নতুন অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। নতুন গ্রাহকদের বেশিরভাগই পোশাক শ্রমিক।

বিকাশের হেড অব কর্পোরেট কমিউনিকেশন্স শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, মোবাইল আর্থিক খাতে অ্যাকাউন্ট খোলার নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে। এই নিদের্শনা দেওয়ার পর থেকে কাজটি দ্রুত গতিতে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। শ্রমিকরা নিজ উদ্যোগে অ্যাকাউন্ট করছেন। আমরা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। এই সময়ে আর্থিক প্রণোদনার ছাড় হবে। কারখানা কর্তৃপক্ষ আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছে কিভাবে কাজগুলো শেষ করা যাবে। আমরা এসব কাজ ভালোভাবে শেষ করতে পারবো বলে আশা রাখছি। এজন্য আমরা সম্পূর্ন প্রস্তুতি নিয়েছি।

শ্রমিকদের বেতন ক্যাশ আউটে হাজারে আট টাকা চার্জ নেয়ার জন্য মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। যার ৪ টাকা দেবে গ্রাহক এবং ৪ টাকা দেবে ঋণপ্রদানকারী ব্যাংক।

নগদের সিএফও আমিনুল হক বলেন, একটা বড় ধরনের পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছি। গার্মেন্টসের শ্রমিকরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তারা তাদের বেতন তুলতে পারছেন। এটা যেমন তাদের জন্য সহজলভ্য হয়েছে একই সাথে গার্মেন্টসের মালিকরা বেতন দিতে পারছে।

নতুন অ্যাকাউন্ট খোলার পাশাপাশি বর্তমান পরিস্থিতিতে বিল পরিশোধসহ অন্যান্য লেনদেনেও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ব্যবহার বেড়ছে বলে জানিয়েছে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।

আপনার মতামত লিখুন :