“ভাসানচর আকর্ষণীয় ও টেকসই স্বজনদের বোঝাব”

প্রকাশিত : ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

নোয়াখালীর ভাসানচর পর্যবেক্ষণ শেষে ক্যাম্পে ফিরেছে ৪০ সদস্যের রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদল। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে স্ব স্ব শরণার্থী শিবিরে ফিরেন তারা। গত শনিবার সন্ধ্যায় তারা ভাসানচরে গিয়েছিলেন। ভাসানচরের পরিবেশ বসবাসের উপযোগী কিনা তা সরেজমিনে পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে এই প্রতিনিধিদল ভাসানচর সফরে যায়। সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম থেকে গতকাল সন্ধ্যার দিকে তারা উখিয়ার কুতুপালং ইউএনএইচসিআরের ট্রানজিট ক্যাম্পে ফিরে আসেন। সেখান থেকে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা উখিয়া ও টেকনাফের নিজ নিজ ক্যাম্পে ফিরে যান। নিজ নিজ ক্যাম্পের কমিউনিটির রোহিঙ্গাদের কাছে ভাসানচরে তৈরি করা আবাসন প্রকল্পের নানা দিক তুলে ধরবেন তারা।

প্রতিনিধিদলের কয়েকজন সদস্য নাম প্রকাশ না করে জানান, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের বসবাসের জন্য যে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা বেশ আকর্ষণীয় ও টেকসই মনে হয়েছে। অন্তত প্রতিটি ক্যাম্প থেকে কিছু কিছু রোহিঙ্গা পরিবার যাতে ভাসানচরে যেতে রাজি হয় তা বোঝানোর চেষ্টা চালাবেন তারা। প্রতিনিধিদলের সদস্যরা জানান, সফরের দ্বিতীয় দিন সোমবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ভাসানচরে গরু, ছাগল, মুরগির খামার ঘুরে দেখেছি। ভাসানচরের চারপাশের বাঁধে হেঁটেছি। দুদিন ভাসানচরে ঘুরে, দেখে মনে হলো, সেখানে রোহিঙ্গাদের জন্য সরকারের গড়ে তোলা অবকাঠামোগুলো মজবুত ও সুন্দর। সেখানকার পরিবেশ, অবকাঠামো ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা তাদের পছন্দ হয়েছে। প্রতিনিধি দলে দুজন মহিলা সদস্যও ছিলেন। প্রসঙ্গত, উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো থেকে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরিত করার পরিকল্পনা আছে সরকারের।

আপনার মতামত লিখুন :