বৈধ কাগজপত্র ছাড়া নিত্যপণ্যের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণের দাবি

প্রকাশিত : ৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

কোনো কারণ ছাড়াই কিছুদিন পর পর বৈধ আমদানির ছাড়পত্র, এলসি খোলার কাগজপত্র ছাড়া আমদানিকারকের কমিশন এজেন্ট, আড়তদার পরিচয়ে কিছু পেঁয়াজসহ ভোগ্যপণ্য ব্যবসায়ী জনগণকে জিম্মি করে বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে।

এ অবস্থায় জরুরীভাবে আমদানিকারকের এজেন্ট পরিচয়ে অবৈধ পেপারলেস ব্যবসা বন্ধ, পেয়াজসহ নিত্যভোগ্য পণ্যের ব্যবসায় স্বচ্ছতা নিশ্চিত, সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, জেলা-উপজেলা প্রশাসন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার অধিদফতরসহ সরকারের বিভিন্ন বিভাগের প্রতিনিধি, ক্যাব, গণমাধ্যম ও চেম্বার প্রতিনিধি সমন্বয়ে বাজার তদারকি জোরদার করার দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রাম।

বিবৃতিতে ক্যাব নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভারতে পেঁয়াজ উৎপাদনকারী রাজ্যে বৃষ্টি ও বন্যা সংবাদে দেশে পেঁয়াজের মূল্য হঠাৎ করে ২ সপ্তাহে দফায় বাড়লেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসন কোন প্রকার উদ্যোগ না নিয়ে নীরব থাকায় জনমনে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির অজুহাতে ব্যবসায়ীরা বার বার তাৎক্ষনিক দাম বাড়ালেও বিদেশে দাম কমলে তার প্রতিফলন দেশে হয় না, তখন উল্টো সুর বেশি দামে কেনা, লোকসান দিয়ে বিক্রি করবো নাকি? যেকোনো পণ্যের দাম বাড়লে বা কৃত্রিম সংকট তৈরি হলে ইতি পূর্বে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসন ঐ খাতের ব্যবসায়ী ও ভোক্তা এবং প্রশাসনের লোকজনকে নিয়ে করনীয় বিষয়ে পরামর্শ সভা করে বিকল্প উৎস থেকে আমদানি করা, বাজার তদারকি জোরদার করে মজুতদারি ঠেকানো, টিসিবির মাধ্যমে খোলা বাজারে পণ্য বিক্রির উদ্যোগ নিয়ে অস্থিরতা বন্ধে উদ্যোগ নিয়ে থাকলেও ইদানিং ব্যবসায়ীদের উপর সবকিছু ছেড়ে দিয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :