রাঙ্গাবালীতে হোম কোয়ারেন্টাইন না মেনে নিজ বাড়ি থেকে পালিয়ে মামার বাড়িতে আত্মগোপন

প্রকাশিত : ৮ এপ্রিল ২০২০

করোনা নিয়ে বিশ্ব যখন আতংকের মধ্যে আছে, বাংলাদেশ সহ পৃথীবির সব দেশে যখন লকডাউন এর ঘোষণা এসেছে, তখনো কিছু মানুষের অসচেতনতা এবং স্বার্থপরতার কারনে করোনা ভাইরাস দ্রতু থেকে দ্রুততর ভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। তেমন ই একজন অসচেতন, নির্বোধ ও স্বার্থপর মানুষের নাম আলিম। ঢাকার কেরানিগঞ্জের মডেল থানার বাসিন্দা আলিম লক ডাউন, সরকারি নিষেধাজ্ঞা এবং নৌপথের সকল লঞ্চ বন্ধ থাকার পর ও সরকারি আদেশ অমান্য করে গোপনে নিজ স্থান থেকে অন্যায়ভাবে পটুয়াখালী জেলার রাঙ্গাবালী উপজেলার কাজিরহাওলা গ্রামের বাড়িতে পালিয়ে এসে নিজ বাড়িতে আত্নগোপন করে। স্থানীয় লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে থানায় জানানোর উদ্যোগ গ্রহন করে।

 

তখন শুরু হয় আরেক নাটক, নিজ বাড়ি থেকে পালিয়ে রাংগাবালী উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের ফুলখালী গ্রামের মামার বাড়িতে ২য় বারের মতো আত্নগোপন করে। সরকারের যে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে তাকে বৃদ্ধাংগুলি দেখিয়ে আলিম ঘুরে বেড়াচ্ছে গ্রামে গ্রামে।

ব্যবহার করছে স্থানীয়দের ব্যবহৃত টিউবওয়েল, বাথরুম সহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব কিছু। আক্রান্ত হওয়ার আতংকে রয়েছে আশে পাশের ২০/৩০ টি পরিবার। আশেপাশের মানুষ রয়েছে চরম করোনা ঝুকিতে, এদের মধ্যে অনেকেই করোনা সম্পর্কে বেশি না জানার কারনে দুই এক জন বাদে তেমন কেউই প্রতিবাদ করে নি। ভাবার বিষয় হচ্ছে কেরানীগঞ্জ এর মডেল থানায় এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩। লকডাউন হওয়া এলাকা থেকে বিগত ৫/৪/২০২০ তারিখে পালিয়ে এসে নিজ গ্রামের মানুষের জীবনকে ঝুকির মুখে ফেলা কতটা যৌক্তিক একজন মানুষের জন্য! স্থানীয় বাসিন্দারা দ্রুত এর প্রতিকার চান, নিজেদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় অনেকেই আলিম কে গ্রাম ছাড়ার অনুরোধ করেন, কিন্তু আলিম তাতে গ্রাহ্য করেনি বললেই চলে। তাই সবাই পুলিশের দ্রুত সাহায্য কামনা করেছে। স্থানীয় থানার অফিসার ইনচার্জের কাছে অভিযোগ করা হলে তিনি এই বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহন করবেন বলে স্থানীয়দের আসস্থ করেছেন

আপনার মতামত লিখুন :